fbpx
FEATURED NON FICTION

আপনার প্রাইভেসি এখন ক্ষমতাধর ব্যক্তিদের টাকার খেলা । PART 1

আপনি হয়ত জানেন না যে আপনাকে দিনের প্রায় প্রতিটি সময় আপনার সঙ্গিনী মোবাইল, ইন্টার্নেট কিংবা আপনার স্মার্ট ডিভাইস গুলো আপনাকে অনুসরণ করছে।

আপনি হয়ত ধারণা করতে পারছেন যে আপনার জন্য আপনার কৃত্রিম সঙ্গী গুলো নিজ ভাবে গুপ্তচরবৃত্তি করতে চাইছে। হয়তো আপনি একদিন অদ্ভুত কিছু সম্পর্কে কথা বলেছেন – ধরুন, সিম কার্ড বা কোনো মোবাইল কোম্পানি এবং ঠিক তার পরেই আপনি হয়ত লক্ষ্য করেছেন যে সেই বিষয়ক এড দেওয়া হচ্ছে আপনাকে।

অথবা, সম্ভবত আপনি এমন হয়ত কাউরোর দ্বারা শুনেছেন যে অ্যামাজনের অ্যালেক্সা মানুষের ব্যক্তিগত কথোপকথন রেকর্ড করে তাদের যোগাযোগের তালিকায় এলোমেলো লোকদের কাছে পাঠানোর বিষয়ে।

এসব আসলেই যথেষ্ট বিরক্তিকর। তবে আপনি কি জানেন যে গোপনীয়তা লঙ্ঘনগুলি কতটা গভীরে যায়?

এখানে মূল বার্তাটি হ’ল: আপনি যেখানেই যান, দিনের প্রতিটি মুহুর্তে আপনাকে দেখা হচ্ছে।

সকালে উঠে মানুষ প্রথমে কী করে?নিশ্চয় ফোন চেক করে, তাই না?

যে মুহূর্তে আপনি আপনার ফোন চালু করবেন, আপনি আপনার ফোনের প্রস্তুতকারক, আপনার পরিষেবা সরবরাহকারী এবং আপনি যে সমস্ত সংস্থা বা এপস থেকে ডাউনলোড করেছেন, সেই সমস্ত সংস্থা সহ বেশ কয়েকটি প্রতিষ্ঠানকে অবহিত করবেন যে আপনি এখন জেগে আছেন।

তারা আরও জানে যে আপনি কোথায় জেগে ছিলেন এবং আপনি কার পাশে জেগে ছিলেন? ( এই কৃত্রিম সঙ্গী গুলো মানুষের ব্যক্তিগত মূহুর্তের ব্যাপার গুলো পরওয়া করেনা, তাই লজ্জা পেয়ে লাভ নেই)

আপনি যদি রাতের বেলায় একটি স্মার্টওয়াচ পরে থাকেন, তাহলে দূঃখের সঙ্গে বলতে হয়, আপনি ঘুম থেকে ওঠার আগেই আপনার উপর নজর রাখা হচ্ছিল। আপনার ঘড়িটি আপনার ঘুমানোর সময় আপনার গতিবিধি এবং হৃদস্পন্দনের উপর নজর রাখছিল, সেইসাথে আপনার যে কোনও যৌন ক্রিয়াকলাপ এর সম্পর্কে জানতেও সেটি দ্বিধা করে নাই।

ধরা যাক, আপনি ওঠার পরে, আপনি টিভির সামনে সকালের নাশতা খেতে পছন্দ করেন। যদি আপনার কাছে একটি স্মার্ট টিভি থাকে, তবে এটি আপনার দেখার অভ্যাসের তথ্য সংগ্রহ করছে এবং এটি প্রস্তুতকারক এবং অন্যান্য আগ্রহী তৃতীয় পক্ষের কাছে পৌঁছে দিচ্ছে আপনার অভ্যাস সম্পর্কে। গবেষকরা দেখেছেন যে , একটি স্যামসাং টিভির মাত্র ১৫ মিনিটের জন্য চালু হওয়ার পরে ৭০০ টিরও বেশি ইন্টারনেট ঠিকানার সাথে যোগাযোগ করেছিল।

এবং এটি কেবল আপনার টিভি নয়। ইন্টারনেটের সাথে সংযোগ স্থাপনকারী যে কোনও কিছু আপনার উপর তথ্য সংগ্রহ করছে। আপনার গেম কনসোল, আপনার ই-বুক, এমনকি আপনার স্মার্ট অন্যান্য সামগ্রী গুলো পর্যন্ত।

আপনার সকালের রুটিন সম্পূর্ণ হওয়ার আপনি কাজে যাওয়ার জন্য আপনার গাড়িতে উঠলেন। এখানে চমক ছাড়া বলতে হয় যে পথে – – আপনার সেই গাড়ী আপনার তথ্য সংগ্রহে ব্যস্ত ( যেসব গাড়ির সঙ্গে স্মার্ট কিছু লাগানো, বা টেসলা) । এটি আপনি যে জায়গাগুলিতে যান, আপনার ওজন থেকে শুরু করে আপনার চোখের গতিবিধি, এমনকি আপনি যে ধরণের সঙ্গীত শুনতে পছন্দ করেন তার সবকিছুর উপর নজর রাখছে।

আপনি একবার কাজে পৌঁছালে, আপনি আপনার কম্পিউটারে লগ ইন করুন এবং আপনার ইমেলগুলি পরীক্ষা করুন। আপনি একটি ইমেল খোলার বিষয়ে দুবার নাও ভাবতে পারেন, কিন্তু আপনি কি জানেন যে তাদের মধ্যে প্রায় 40 শতাংশে ট্র্যাকার রয়েছে? ইমেল টি খোলার মাধ্যমে, আপনি তৃতীয় পক্ষগুলিকে আপনাকে সনাক্ত করতে এবং ইন্টারনেট জুড়ে আপনার ক্রিয়াকলাপ ট্র্যাক করার অনুমতি দেন।

সর্বব্যাপী নজরদারি একবিংশ শতাব্দীর জীবনের একটি সত্য হয়ে উঠেছে। কিন্তু পুরোপুরি নয়, তবুও এটি এড়ানো অসম্ভব।

গুগল ব্যক্তিগত তথ্য লাভজনক করে নজরদারি পুঁজিবাদের উদ্বোধন করেছে।

ডেটা অর্থনীতি কেবল মাত্র একবিংশ শতাব্দীতে শুরু হয়েছিল। এমনকি সম্প্রতি 1990 এর দশকের শেষের দিকে, একটি টিভি তখনও কেবল একটি টিভি ছিল, একটি গাড়ি কেবল একটি গাড়ি ছিলো। সেসব কৃত্রিম জিনিসগুলো আপনার প্রতি আগ্রহী ছিল না। তারা আপনার কথোপকথন শোনেনি বা আপনার গতিবিধি ট্র্যাক করেনি। 1990 এর দশকে তখনও, আপনার ডিভাইসগুলি আপনাকে সেবা দিচ্ছিলো কিন্তু, তথ্য চুরির কোনো বিষয়ই ছিলো না বর্তমানের মতন।

নজরদারি অর্থনীতি বেশিরভাগ মানুষকে অবাক করে দিয়েছিল এমন কি এখনও দিচ্ছে। এ যেন আমরা সবাই একদিন সকালে ঘুম থেকে উঠে একটি নতুন আর অন্ধকার বাস্তবতায় পরিণত হয়েছি।

তাহলে, আমরা কীভাবে এই ঝামেলায় জড়িয়ে পড়েছি? আসলে , এই গল্পের একটি মূল খেলোয়াড় হল গুগল।

এখানে মূল বার্তাটি হ’ল: গুগল ব্যক্তিগত তথ্য লাভজনক করে নজরদারি পুঁজিবাদের উদ্বোধন করেছে।

২০-এর দশকের শুরুতে গুগলের ক্ষমতায় উত্থানের আগে, ব্যক্তিগত তথ্যের তখন কোনও বাণিজ্যিক মূল্য ছিল না।

সংস্থাগুলি তাদের ব্যবহারকারীদের কিছু ব্যক্তিগত ডেটা অ্যাক্সেস করেছিল কারণ ডিজিটাল ডেটার কারনে তারা পণ্য নির্ধারন করতে সক্ষম হতো। তবে এটি কেবল তাদের পরিষেবাউন্নত করতে ব্যবহৃত হয়েছিল।

কিন্তু গুগল তা পরিবর্তন করেছে এবং বর্তমানের এসব তথ্য চুরির জন্য গুগল দ্বায়ি। । ২০ সালে, গুগল বুঝতে পারে যে তার ব্যবহারকারীরা যে অনুসন্ধান গুলি করেছে তা লক্ষ্যযুক্ত বিজ্ঞাপন বিক্রি করতে, ব্যবহার করা যেতে পারে। প্রথমবারের মতো, একটি সংস্থা ব্যক্তিগত ব্যবহারকারীদের উপর সুনির্দিষ্ট প্রোফাইল তৈরি করে এবং তৃতীয় পক্ষের কাছে এই তথ্য বিক্রি করতে ব্যক্তিগত ডেটা ব্যবহার করতে শুরু করে।

এটি একটি অবিশ্বাস্য লাভজনক ব্যবসায়িক মডেল হিসাবে প্রমাণিত হয়েছিল। ২০ সালে গুগলের আয় ছিল ১৯ মিলিয়ন ডলার, ২০০৪ সালের মধ্যে, সংস্থাটি ৩.২ বিলিয়ন ডলার আয় করছিল। এটি মাত্র চার বছরে ৩,৫৯০ শতাংশ মুনাফা বৃদ্ধি।

গুগল শিখেছিল কীভাবে ডেটা এক্সজস্টকে সোনায় পরিণত করতে হয় এবং অন্যান্য সংস্থাগুলি দ্রুত এটি অনুসরণ করে। গুগলের ব্যবসায়িক মডেলের উত্তরাধিকার তখন থেকে ইন্টারনেটের বিকাশকে সংজ্ঞায়িত করেছিলো।

এবং এটি আর কেবল অনলাইন বিশ্ব নয় যা মুনাফা অর্জন করছে – ঐতিহ্যগতভাবে অ-ডিজিটাল শিল্পগুলি ক্রমবর্ধমানভাবে এই ব্যবসায়িক মডেলটি গ্রহণ করতে শুরু করে। অতএব, প্রতিটি সংস্থা তাদের ডিভাইসগুলির স্মার্ট সংস্করণ নিয়ে আসছে। উদাহরণস্বরূপ, নাইকি সম্প্রতি তাদের প্রথম স্মার্ট জুতা প্রকাশ করেছে, সম্ভবত যাতে তারা ডেটা গেমে একটি পা রাখতে পারে।

নজরদারি পুঁজিবাদ বলতে এটাই বোঝায়। আমরা পুঁজিবাদের ইতিহাসে একটি নতুন যুগে প্রবেশ করেছি যেখানে নজরদারি এবং ব্যবসা একসাথে চলে – যেখানে তথ্য অর্থনীতির সবচেয়ে মূল্যবান পণ্য। ডেটা অর্থনীতি নাগরিকদের পণ্যে রূপান্তরিত করেছে।

আপনার ডেটা মূল্যবান, কারণ এই ডেটা তাদের দেওয়া হয় যাদের আপনার উপর ক্ষমতা রয়েছে।

যার কাছেই আপনার ব্যক্তিগত ডেটা থাকুক না কেন, এটি তাদের আপনার উপর ক্ষমতা দেয়।

আপনি যখন আপনার ব্যক্তিগত তথ্য আপনার পছন্দের ব্যক্তিদের সাথে ভাগ করেন, তখন আপনি তাদেরকে বিশ্বাস করেই ভাগ করেন যাতে করে আপনাকে উপকৃত করবে। উদাহরণস্বরূপ, একজন বন্ধু আপনার রুচি এবং আগ্রহ সম্পর্কে তার জ্ঞান ব্যবহার করে একটি বইয়ের সুপারিশ করতে পারে কিংবা কোনো পোশাক পছন্দ করে দিতে পারে।

তবে বেশিরভাগ তৃতীয় পক্ষের হৃদয়ে আপনার জন্য সব সময় সেরাটা ভাবে না। মনে রাখতে হবে যে, তারা আপনার উপকারের জন্য আপনার ডেটা সংগ্রহ করছে না।

এখন প্রশ্ন হচ্ছে তাহলে, আপনার ডেটা কীভাবে ব্যবহার করা হচ্ছে?

খুব সহজ ভাবে বলতে গেলে এটি আপনাকে প্রভাবিত করতে, আপনার বিরুদ্ধে বৈষম্যমূলক আচরণ করতে এবং আপনার কাছ থেকে অর্থ আহরণ করতে ব্যবহার করা হচ্ছে।

সব চেয়ে বেশি আপনার তথ্য ব্যবহার করা হয় লক্ষ্যযুক্ত বিজ্ঞাপন এর জন্য। তৃতীয় পক্ষগুলি আপনাকে ইন্টারনেট জুড়ে, আপনার অ্যাপগুলিতে এবং আপনার সামাজিক মিডিয়া ফিডে কাস্টমাইজ করা বিজ্ঞাপনগুলি দেখানোর জন্য আপনার সম্পর্কে খুব নির্দিষ্ট, অত্যন্ত সংবেদনশীল জ্ঞান ব্যবহার করে।

এই বিজ্ঞাপনগুলি প্রায়শই আপনার জীবনে একটি উল্লেখযোগ্য প্রভাব ফেলতে পারে। উদাহরণস্বরূপ, কিছু লোক বিবাহ বিচ্ছেদ আইনজীবীদের জন্য বিজ্ঞাপন দেখে কারণ তাদের ডিভাইসগুলি জানে যে তারা তাদের স্ত্রীর সাথে লড়াই করছে এবং এক সাথে কম সময় কাটাচ্ছে।

অন্য সময়, আপনার কাছে কিছু বিক্রি করার জন্য ডিজাইন করা হয়নি এই বিজ্ঞাপনগুলি, বরং আপনার রাজনৈতিক দৃষ্টিভঙ্গি এবং আপনার ভোটদানের আচরণকে প্রভাবিত করার জন্য, ব্যবহার করে অনেক সময় । ২০১৬ সালের মার্কিন নির্বাচনে ঠিক এটাই ঘটেছিল।

ডেটা কোম্পানি কেমব্রিজ অ্যানালিটিকা, লক্ষ লক্ষ ফেসবুক ব্যবহারকারীর ব্যক্তিগত তথ্য ব্যবহার করে তাদের মক্কেল ডোনাল্ড ট্রাম্পের পক্ষে নির্বাচনের ফলাফলকে প্রভাবিত করার জন্য একটি অনলাইন প্রচারণা যুদ্ধ শুরু করে। ব্যক্তিগত তথ্য কেমব্রিজ অ্যানালিটিকাকে “প্ররোচিত” হিসাবে উল্লেখ করা লোকদের সনাক্ত করতে এবং তারপরে নির্দিষ্টভাবে কাস্টমাইজড প্রচারণা এবং ভুয়া সংবাদ দিয়ে তাদের লক্ষ্য করতে সক্ষম করে।

অন্যান্য সংস্থাগুলি আপনার ব্যক্তিগত ডেটা ব্যবহার করে, আপনাকে প্রভাবিত করার জন্য নয়, বরং আপনার বিরুদ্ধে বৈষম্যমূলক আচরণ করতে। আপনি এটি উপলব্ধি নাও করতে পারেন, তবে ভোক্তা রেটিং সংস্থাগুলি আপনার তথ্যের উপর ভিত্তি করে আপনার উপর একটি গোপন স্কোর রাখে। এই স্কোরটি সমস্ত ধরণের সংস্থাগুলি দ্বারা ব্যবহার করা হয় । যেমন আপনি যখন তাদের কল করেন তখন আপনাকে কতক্ষণ ধরে রাখা হয়, ভেবেছেন? এবং তারা অনেক সময় আপনার তথ্যের উপর ভিত্তি করে সিদ্ধান্ত দেয় যে আপনি কোনও পণ্য ফেরত দেওয়ার যোগ্য কিনা।

অর্থনীতির সারমর্ম হচ্ছে বৈষম্য তথ্য । আপনার ডেটার মাধ্যমে, আপনাকে লক্ষ্য করা হয় এবং অন্যভাবে আচরণ করা হয়। আপনার গোপনীয়তা সম্পর্কে চিন্তা করা উচিত কারণ এর কেনোনা আপনার গোপনীয়তা হচ্ছে আপনার স্বাধীনতা।